Home » অন্যান্য » রেলমন্ত্রীর এপিএসের গাড়ি হঠাৎ পিলখানায় ঢুকে পরলো !!!!!!!

রেলমন্ত্রীর এপিএসের গাড়ি হঠাৎ পিলখানায় ঢুকে পরলো !!!!!!!

256 বার পঠিত

একটি গাড়ি। তিনজন যাত্রী। একজন চালক। কয়েক লাখ টাকা। রাত প্রায় ১১টা। ধানমন্ডি ৩ নম্বর সড়ক থেকে ছুটে চলা। গন্তব্য কাছেই, জিগাতলা। পথে বিজিবির সদর দপ্তর, পিলখানা। হঠাৎ চালকের সেখানে ঢুকে পড়া। রাতভর ‘আটকে থাকা’। দিনভর আলোচনা, গল্প-ডালপালা। অতঃপর দুটি তদন্ত কমিটির ঘোষণা।
গাড়ির তিন যাত্রী হলেন রেলওয়ের পূর্বাঞ্চলের মহাব্যবস্থাপক (জিএম) ইউসুফ আলী মৃধা, তাঁর নিরাপত্তা কর্মকর্তা রেলওয়ের কমান্ড্যান্ট এনামুল হক ও রেলমন্ত্রীর সহকারী একান্ত সচিব (এপিএস) ওমর ফারুক তালুকদার। মাইক্রোবাস (ঢাকা মেট্রো-চ ১৩-৭৯৯২) চালাচ্ছিলেন এপিএস ফারুকের ব্যক্তিগত চালক আজম খান। গন্তব্য—রেলমন্ত্রী সুরঞ্জিত সেনগুপ্তের বাসা। বাকি সব ঠিক আছে, গোল বাধিয়েছে টাকা।

গত কাল সারাদিন মুখরোচক খবর ছিল। মিডিয়ার বদৌলতে সারা দেশবাসী নীতিবান মন্ত্রীর পদস্থ কর্মকর্তাদের নীতিবিবর্যিত কার্জকলাপ জানতে পারলো। খবরে যা জানা গেল টাকা গুলোর উৎস মন্ত্রনালয়ের নিয়োগ বানিজ্য থেকে। কপাল খারাপ। এ ভাবে হাতেনাতে ধরা পরার জন্য। এ ব্যাবসা তো সব মন্ত্রনালয়েই চলে আসছে। এটা নাকি জায়েজ !!!! প্রকাশ পেলেই সমস্যা।

কি নৈতিক অবক্ষয় ? মন্ত্রীত্ব পাবার পর সুরুঞ্জিত বাবুর মুখটিপে হেসে, রসিয়ে , চিবিয়ে চিবিয়ে যে সব নৈতিকতার কথা বলতে শুনেছিলাম, তার ই অধিনস্তদের কি করুন নৈতিক চরিত্র !!!! আবার মিডিয়ার কাছে মন্ত্রী সাহেব তাদের জন্য সাফাই গাওয়ার চেষ্টা করলেন।  কি অভাগা জাতী আমরা। নেতাদেরকে অনুসরন করে পুরা জাতীর আজ এই অবক্ষয়।

দেখা যাগ গোয়েন্দা রিপোর্টে কি বের করতে পারে ! অবশ্য তাদের ও তো সিমাবদ্ধতা আছে ! তারা ও তো সব করতে পারেনা।  লেটেষ্ট উদাহারন তো আমাদের চোখের সামনেই ঘুরছে – ১। সাগর রুনির হত্যা ২। সৌদি কর্মকর্তার হত্যা  ৩। বাচ্চু রাজাকার নামের লোকের দেশ থেকে পলায়ন – কোনটারই কুলকিনারা করতে পারে নাই আমাদের গোয়েন্দা বিভাগ। কোথায় দুর্বলতা ?

© বদলে যাও, বদলে দাও!