বিষয় : ‘অন্যান্য’


দেশের মালিক !

  এদেশের মালিক কে? সাধারণ জনগণকেই একটি দেশের মালিক বলে বিবেচনা করা হয় ।তার পিছনে যথাযত যুক্তিও কিন্তু কম নয় ।একজন দিনমজুর যদি কাজ না করে সেটাও দেশের অর্থনীতির উপর অনেক বড় প্রভাব ফেলে আমি মনে করি কারণ একজন কাজ না করলে আরেকটু বেশী দামে আরেকজনকে সেই কাজের জন্য নিতে হবে, এতে কাজের জন্য সময়

বিস্তারিত

খবরের পিছনে রির্পোটার, টিভির সামনে দর্শকের হিড়িক

টিভির স্কিনে দর্শকের হিড়িক। পত্রিকার পাতায় পাঠক। কলমের ডগায় লেখক। খবরের সন্ধানে ছুঁটছে সবাই। সাংবাদিক, পাঠক ও দর্শক। এই মূহুর্তের খবর, সদ্যপ্রাপ্ত খবর জানতে সকাল থেকে রাত ১২টা পর্যন্ত উৎসুক দর্শক এখন টিভির সামনে সময় কাটাচ্ছে। দেশটা তো আমার, আমাদের। কোথায় কী হচ্ছে? এর খবর তো নিতে হবে। এরকমই উৎসুক দর্শকদের হিড়িক চোখে পড়ছে সারাদেশের

বিস্তারিত

দায়িত্বহীনতার কবলে দেশ

গণতন্ত্রের জন্য চোখের জল ফেলে ফেলে বিশিষ্টজনরা আরেকটা গঙ্গা বইয়ে দিলেন! এটা খুবই ভাল কথা! নদীমাতৃক এ দেশে যেভাবে নদীগুলোকে মেরে ফেলা হচ্ছে তাতে একটি গঙ্গোত্রী পেলে ভালই হয়। কিন্তু সেই সাথে তারা যদি দাবী আদায়ের নামে দেশ জুড়ে চালানো সন্ত্রাসী কার্যকলাপের বিরুদ্ধে অবস্থান গ্রহণ করতে পারতেন। তাহলে বোধ করি দেশবাসী আরও অনেক বেশি উপকৃত

বিস্তারিত

আমরা স্বাধীন নই

বিজয় অর্জনের ৪২ বছর পার হয়ে গেছে। দুর্ভাগ্যজনক হলেও বলতে হচ্ছে, আমরা স্বাধীনতা রক্ষা করতে ব্যর্থ। যেই স্বপ্ন নিয়ে অগণিত মানুষ জীবন দিয়েছিল, বিপুল ত্যাগ স্বীকার করেছিল, স্বাধীন করেছিল দেশ, সেই দেশ কী আমরা পেয়েছি? মানুষের পথ চলায় স্বাধীনতা নেই, কথা বলায় স্বাধীনতা নেই, যেই দেশে জনগনের দাবি-দাওয়ার বাস্তবায়ন হয় না, নেই ভাল ভাবে খেয়ে

বিস্তারিত

সামনে নির্বাচন; নাকি যুদ্ধ! নাকি শান্তি!

দশম জাতীয় সংসাদ নির্বাচন আগামী ৫ তারিখ। ইতিমধ্যে কোন প্রতিদ্বন্দ্বী না থাকায় ১৫৪টি আসনে বিনা প্প্রতিদ্বন্দ্বীতায় নির্বাচিত হয়েছেন ঐ সকল আসনের মহাজোট প্রার্থিরা। তাদের সকলের মুখেই এখনো চিন্তার ভাজ! কারণটা কি? সেটা সকলেই জানেন। বাকি আসনগুলিতে নির্বাচন  হবে। কিন্তু কোন বিদেশী পর্যবেক্ষক দলই এখনও পর্যন্ত নির্বাচন পর্যবেক্ষন এ তাদের প্রতিনিধি পাঠাতে রাজি হয় নাই। কারণ

বিস্তারিত

দেশটা এখন অশান্তির ফ্যাক্টরী

বাংলাদেশের চলমান পরিস্থিতির কারনে হঠাৎ গ্রামের ১১৫ বছর বয়সী দাদার কথা মনে হ’ল , তাঁর বিভিন্ন উপদেশমূলক কথার একটি হ’ল – “ যে নারীর স্বামী নেই তাকে রাখালে ডেলাই (পাথর ছুঁড়ে)”। বহিরাগত উপদেশ-আদেশ- নির্দেশ -পরামর্শ  সবকিছুই ডিল ছঁড়ার মত অবস্থা প্রমানক বলে মনে করি। এ দেশে মওলানা ভাষানী সাহেবের মত  নীতিবান দেশ প্রেমিক নেতা সাধারণ

বিস্তারিত

বিজয় দেখেছি, বিজয়ের স্বাদ আজও পাইনি

বিজয়ের ৪২ বছর। আমরা আবারও স্বপ্ন দেখি। স্বপ্ন দেখি বহুদলীয় টেকসই গণতান্ত্রিক ক্ষুধা, দারিদ্র ও দূর্নীতি মুক্ত অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশের। এক একটি বছর যায়। চোখে হতাশা দেখি। আবারও নতুন করে স্বপ্ন দেখি। ৪২টি বছর এভাবে আমরা স্বপ্ন দেখে আসছি। বুকে লালন করে আসছি স্বাধীনতার চেতনা। বার বার শাসকগোষ্ঠীর কাছ থেকে আমরা প্রতারিত হচ্ছি। বেকার সমস্যা দূরীভূত

বিস্তারিত

পুরোটাই কাল্পনিক, বাস্তবতার সাথে মিলে গেলে আমার কোন দোষ নাই (রম্য-২)

আমরা সবাই খলিফাদের আমলের একটি কাহিনী জানি, কিন্তু সেই কাহিনীর ব্যতিক্রম জানি না। সংক্ষেপে কাহিনীটি ছিল এমন, এক বাচ্চাকে নিয়ে দুই মহিলা (তখনকার আমলে দুই মহিলা নামে কোন গালি ছিল না) কাজীর কাছে গেল বিচার নিয়ে। দুইজনই বলছে যে, এটা আমার বাচ্চা। কাজীতো পড়ে গেল মহাফ্যাসাদে, দুইজন বাপ বললেও কথা ছিল, কিন্তু দুই মা আবার

বিস্তারিত

স্বাধীনতার কথা বলছি

স্বাধীন দেশ স্বাধীন মানুষ স্বাধীন রাষ্ট্র স্বাধীন মতামত। এ গুলি সবই মূল স্বাধীনতার সজ্ঞা। বাংলাদেশ নামক রাষ্ট্রটির জন্ম হয়েছিলো ১৯৭১ সালের ১৬ই ডিসেম্বর। আহ কত আনন্দ ছিলো এই মাটি ও মানুষের! আজ সেই রাষ্ট্রটি স্বাধীন থাকা সত্বেও মাটি মানুষের আজ কেনো আনন্দ নেই? নেই কেনো সেই স্বাধীনতা! স্বাধীন রাষ্টটিতে মাটি ও মানুষ আজ কেন পরাধীনতার

বিস্তারিত

নিজেকেও এখন আর ক্ষমা করতে পারি না

চারিদিকে এমন কেন হচ্ছে, তবে কি আবার আমরা যুদ্ধের মধ্য দিয়ে যাচ্ছি? রাজনৈতিক দোলাচলে আজ দেশটা শেষের কিনারায় এসে দাড়িয়েঁছে। মুক্তিযুদ্ধের সময়ের সাথে অমিল কোথায়? দেশের সাধারন মানুষের ঘরবাড়ি পুড়ে দেওয়া, মানুষের দেহ ঝলসে দেওয়া, লুটপাট, ব্যবসা বন্ধ করে দেওয়া সবই আবার শুরু হয়েছে। মানুষের জীবন আজ নিরাপত্তাহীন । একদিকে সরকার বলছে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হবে

বিস্তারিত

© বদলে যাও, বদলে দাও!